প্রবাসী উদ্যোক্তার খামার বর্জ্যে বায়োগ্যাস

top Banner

মিরসরাইয়ে ডেইরি ফার্মের বর্জ্যে উৎপাদন করা হচ্ছে বায়োগ্যাস। দৈনিক ৩০ ঘনমিটার গ্যাস উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরে প্ল্যান্ট তৈরি করা হয়েছে। ওই প্লান্ট থেকে নবায়নযোগ্য জ্বালানী ব্যবহার করে উপকৃত হবে এলাকার ২০টি পরিবার। উপজেলার ওয়াহদেপুর ইউনিয়নের গাছবাড়িয়া গ্রামের গড়ে তোলা হয়েছে আলম ডেইরি ফার্ম ও বায়োগ্যাস প্লান্ট। লন্ডনে বসে খামারের কর্মকান্ড দেখভাল করছেন প্রবাসী উদ্যোক্তা মো. পারভেজ।

জানা গেছে, মিরসরাই উপজেলার ওয়াহেদপুর ইউনিয়নের গাছবাড়িয়া গ্রামের মোঃ আলমের ছেলে মোঃ পারভেজ প্রায় ২০ বছর আগে লন্ডন চলে যায়। কিন্তু দেশের মায়া তিনি ছাড়তে পারেননি। তাই লন্ডনে আয়ের টাকায় গ্রামের বাড়িতে ২০১৮ সালে গড়ে তোলেন আলম ডেইরি ফার্ম। খামার দেখাশুনা করার জন্য রাখা হয়েছে ৪ জন লোক। খামারের ম্যানেজার আরুন নাথ জানান, তাদের খামারে বর্তমানে বিভিন্ন জাতের ৩৫ টি গরু ও বাছুর রয়েছে। খামার থেকে প্রতিদিন দেড়’শ লিটার দুধ সীতাকুন্ড উপজেলার একটি মিষ্টির দোকানে সরবরাহ করা হয়। এছাড়া এলাকায় মানুষকে তাদের চাহিদা মতো দুধ সরবরাহ করা হয়। ডেইরি ফার্মের পাশাপাশি প্রবাসী মো. পারভেজের পরামর্শে বর্তমান চাষ করা হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের সবজি ও ধান। এ প্রকল্পের নাম দেয়া হয়েছে সালমা এগ্রো।

খামারটি ঘুরে দেখা গেছে, খামারের গরুর বর্জ্য ফেলার জন্য ১০ ফুট ১০ ফুটের হাউজ করা হয়েছে। প্রতিদিন খামার থেকে বর্জ্যগুলো ওই হাউজে ফেলা হয়। যাতে এলাকার পরিবেশ দূষণ না হয়। ওই হাউজ থেকে বর্জ্যগুলো বায়োগ্যাসের প্লান্টে নিয়ে গ্যাস উৎপাদন করা হয়। চলতি সপ্তাহে প্ল্যান্ট থেকে বাড়িতে বাড়িতে গ্যাস সরবরাহ করা হবে জানিয়েছেন রায়োগ্যাস প্লান্টের তত্ত্বাবধানে থাকা মো আসিফ।

মোবাইলফোনে প্রবাসী মো. পারভেজ জানান, অনেকটা শখের বসে তিনি খামার দুইটি গড়ে তুলেছেন। প্রবাসে থেকে কর্মচারীদের নানা ভাবে পরামর্শ দিয়ে খামার পরিচালনা করছেন। গো খাদ্যসহ জিনিপত্রের দাম বেড়ে যাওয়ায় এখনও খামার থেকে লাভের মুখ দেখেননি। খামারের ব্যয় মিটাতে গিয়ে প্রতিমাসে প্রায় লোকসান দিচ্ছেন। ডেইরি ফার্ম ও সালমা এগ্রোতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে কমপক্ষে ১০টি পরিবারের কর্মসংস্থান হয়েছে। তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলে, খামার করার পর থেকে স্থানীয় কিছু মানুষের শত্রুতে পরিনত হয়েছেন। খামারকে পরিবেশ বান্ধব করে তোলের লক্ষ্যে বর্জ্যরে জন্য আলাদা হাউজ ও বর্জ্য গুলো দিয়ে ৩০ ঘনমিটারের বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট করেছেন। প্ল্যান্ট থেকে এলাকার প্রায় ২০ পরিবার জ্বালানী পাবে। সম্প্রতি খামার দুটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজা জেরিনও পরিদর্শন করে এসেছেন।

উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মো জাকিরুল হোসেন জানান, লন্ডন প্রবাসীর খামার দুইটি পরিকল্পিত ভাবে গড়ে তোলা হয়েছে এবং সরকারি ভাবে নিবন্ধিত দুইটি খামার। দেশের এ খামার গুলো দুধ ও মাংসের চাহিদা পুরণ করে। কিন্তু ২০২২ সালে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ট্রেড লাইন্সেন না দেয়ায় নিবন্ধন নবায়ন করা যায়নি। প্রবাসীদের এমন উদ্যোগে যেখানে উৎসাহ দেয়া প্রয়োজন সেখানে প্রবাসীর খামার দুইটিকে ট্রেড লাইন্সেস কেন দেয়া হচ্ছে না বুঝতে পারছেন না। তিনি বলেন, বায়োগ্যাস প্লান্ট করার ফলে পরিবেশ দুষণ কমার সাথে সাথে এলাকার মানুষও নবায়নযোগ্য জ্বালানী ব্যবহার করে উপকৃত হবেন। বায়োগ্যাস প্লান্ট থেকে বের হওয়া গোবরও জমিতে জৈব সার হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজা জেরিন জানান, প্রবাসী উদ্যোক্তার খামার ও বায়োগ্যাস প্লান্ট দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভুমিকা রাখবে নিঃসন্দেহে। সামর্থ অনুযায়ী প্রত্যককে ছোটখাট শিল্প উদ্যোক্তা হিসেবে এগিয়ে আসা প্রয়োজন। খামারের বর্জ্য গুলো দিয়ে বায়োগ্যাস উৎপাদন করা হচ্ছে। এতে এদিকে যেমন নবায়নযোগ্যা জ্বালানী পাওয়া যাচ্ছে অন্য দিকে পরিবেশও দুষণ থেকে রক্ষা পাচ্ছে।

আরো খবর