অবকাঠামো উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে মিরসরাইয়ের চিত্র

অবকাঠামো উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার চিত্র। এখানে গড়ে উঠছে দেশের সবচেয়ে বড় অর্থনৈতিক অঞ্চল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগর। ১৬টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত ৪৮২.৮৮ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের এই উপজেলায় ২০৯টি গ্রাম রয়েছে। এসব অনেক গ্রামে শহরের মতোই রাতের অন্ধকার দূর করতে গ্রামের সড়কের মোড়ে মোড়ে শোভা পাচ্ছে সোলার ল্যাম্পপোস্ট। গ্রামীণ সড়ক এখন হয়েছে পিচঢালা। কাচা বা মাটির ঘর এখন আর তেমন চোখে পড়ে না। অধিকাংশ বাড়ি পাকা ও আধাপাকা। সরকারের স্থায়িত্ব উন্নয়নের সুফল প্রান্তিক পর্যায়ে পৌঁছে যাচ্ছে আর ক্রমশ বদলে যাচ্ছে সবকিছু। শহরের সুবিধা পৌঁছে যাচ্ছে গ্রামেও। বদলে গেছে গ্রামীণ জীবন। ভূমিহীন-গৃহহীনরা সরকারের দেওয়া বিনা পয়সায় ঘর পাচ্ছে। সরকার গৃহীত নানা প্রকল্পের কারণেই গ্রামীণ অর্থনীতিতে পরিবর্তন এসেছে।

মিরসরাই উপজেলা অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার গ্রামীণ কাঁচা সড়ক পাকা হয়েছে সাড়ে ৪০০ কিলোমিটার। বর্তমানে ১৮টি প্রকল্পের অধীনে একশ’র অধিক স্ক্রীমের মধ্যে ১২০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩০ কিলোমিটার গ্রামীণ সড়ক কার্পেটিং, ১৫কিলোমিটার সড়ক সংস্কার, ২৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ, সাড়ে ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩৬মিটার দৈর্ঘ্যরে মঘাদিয়া বানাতলী সেতু, ২৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৫২ মিটার ফেনী নদীর ওপর মিরসরাই-ফেনী সংযোগ সেতু নির্মাণ, সার্বজনীন গ্রামীণ হাটবাজার উন্নয়নের অধীনে কমর আলী বাজারে চারতলা বিশিষ্ট মার্কেট এবং ৮৮ লাখ টাকা ব্যয়ে করেরহাট ও জোরারগঞ্জ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের নতুন ভবনের নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে।

উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী রনী সাহা জানান, চলতি অর্থবছরে মিরসরাই উপজেলায় গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে প্রায় ২শ’কোটি টাকা ব্যয়ে ১৮টি প্রকল্পের অধীনে একশ’র অধীক স্ক্রীম এর কাজ চলছে। এগুলোর বাস্তবায়ন হলে উপজেলা কিংবা গ্রামের চেহারা পাল্টে যাবে।

জোরারগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল করিম মাষ্টার বলেন, এই ইউনিয়নে সরকারের গৃহীত নানা প্রকল্প বাস্তবায়নের কারণেই প্রত্যন্ত গ্রামে সোলার লাইট স্থাপন, ড্রেনেজ ব্যবস্থা, কাঁচা রাস্তা পাকাকরণ, শিক্ষা, চিকিৎসা, বিদ্যুৎসহ যোগাযোগ ব্যবস্থায় নানা পদক্ষেপ নেয়ায় এখন ইউনিয়নের দৃশ্যপট পাল্টে গেছে।

মঘাদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসাইন মাষ্টার বলেন, আমি ২০১৬ সালে প্রথমবার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে অধ্যবদি আমার ইউনিয়নে আমাদের অভিবাবক সাবেক সফল মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের নির্দেশে ইউনিয়নজুড়ে ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করা হয়েছে। প্রতিটি গ্রামের রাস্তা পাকা করা হয়েছে।

এই ব্যাপারে মিরসরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী জানান, জোট সরকারের আমলে উপজেলা পর্যায়ে যে উন্নয়ন হয়নি তার চেয়ে বেশি উন্নয়ন হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে। টেকসই ও সময়োপযোগী প্রযুক্তি ব্যবহার করে গ্রামীণ জনপদে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি, কৃষি, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের অগ্রগতি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, জীবিকা এবং উন্নত জীবনব্যবস্থা তথা মানবসম্পদ উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে সরকার।

আরো খবর