‘সাংস্কৃতিক আন্দোলনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা
আন্দোলনের সূত্রপাত ঘটিয়েছিলেন’ -কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন

top Banner

নিজস্ব প্রতিবেদক :

মিরসরাইয়ে ৩য় আন্তর্জাতিক কবি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) সকাল ১০টা থেকে দিবসব্যাপী স্থানীয় পত্রিকার খবরিকার উদ্যোগে উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে দু’টি অধিবেশনে অনুষ্ঠানটি সম্পন্ন হয়।

‘কবিতায় বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক এবারের অনুষ্ঠানে দ্বিতীয় অধিবেশনের উদ্বোধন করেন আন্তর্জাতিক বরেণ্য কথা সাহিত্যিক স্বাধীণতা, একুশে ও সার্ক পদকপ্রাপ্ত কবি সেলিনা হোসেন। এসময় তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চ এর ভাষনে যখন আলোচনার ডাক দিয়েছিলেন তখন ইয়াহিয়া খান সেই শান্তির পথ বন্ধ করে দেশে একটি অন্ধকার সময়ের দিকে ঠেলে দিয়েছিলো। আর তখনি বাংলা একাডেমী থেকে শুরু করে সর্বত্র সাহিত্য সংস্কৃতিকর্মীরাই শুরুতে সংগঠিত হয়ে বঙ্গবন্ধুর সাথে ঐক্যমতে স্বাধীনতা আন্দোলনে স‚ত্রপাত ঘটিয়েছে। যার ফলশ্রæতিকে আজকের এই মহান স্বাধীন দেশ পেয়েছি আমরা।’ তিনি মিরসরাইয়ের মতো গ্রামীণ জনপদে বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে এমন একটি আয়োজনে সাধুবাদ জানান।

কথা সাহিত্যিক কাইয়ুম নিজামী সভাপতিত্বে কবি ও সাংবাদিক মাহবুব পলাশ ও পুশকিন চৌধুরীর সঞ্চালনায় উক্ত পর্বে বিশেষ অতিথী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক আজাদীর ফিচার এডিটর প্রদীপ দেওয়ানজী, চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও কবি হোসাইন কবির, কবি ও সাংবাদিক নেতা নাজিমুদ্দিন শ্যামল, দৈনিক যুগান্তরের সহ সম্পাদক রীতা ভৌমিক, ভারত থেকে আগত কবি ও সাংবাদিক দেবজ্যোতি কর্মকার, কলকাতার কবি সুব্রত পাল, নেপাল থেকে আগত কবি সুদীপ কুমার শাহ ও আক্তার হোসাইন প্রমুখ। অনুষ্ঠানের উক্ত পর্বে প্রধান অতিথী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন।

সকাল ১০টা থেকে প্রথম পর্ব উদ্বোধন করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মর্কতা মো. মিনহাজুর রহমান। গীতিকবি ও প্রাবন্ধিক শাখাওয়াত উল্লাহ এর সভাপতিত্বে এবং রিপন গোপ পিন্টু ও নাজমুন ফারহার সঞ্চালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কাজী মোস্তফা আলম এফসিএ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী, সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর ভ‚ঁইয়া, মিরসরাই পৌরসভার মেয়র গিয়াস উদ্দিন, ৩নং জোরারগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মাষ্টার রেজাউল করিম, মিরসরাই পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাফর ইকবাল প্রমুখ।

মারমা ভাষায় কবিতা আবৃত্তি করেন বান্দরবান এর কবি উইন মং জলি ও আমিনুর রহমান প্রামাণিক, ইংরেজী ভাষায় আবৃত্তি করেন প্রফেসর শিমুল ভৌমিক, ফারসি, উর্দ্দু, আরবী, নেপালী, ও হিন্দি ভাষায় কবিগন আবৃত্তি করেন কবিতা। বাংলা ভাষায় আবৃত্তি করেন দেবাশিষ ভট্টাচার্য্য, বনশ্রী বড়ুয়া রুমী, শুক্কুর চৌধুরী, কেয়া চক্রবর্তি, মাহমুদ নজরুল, শাহাদাত হোসেন লিটন, নির্দেশ বড়–য়া প্রমুখ। প্রথম পর্বে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন শেষে পায়রা অবমুক্ত করা হয় দ্বিতীয় পর্বের শুরুতে বাংলাদেশী, নেপালী ও ভারতীয় জাতীয় সংগীত পরিবেশনের পর বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা নিবেদন হয় জারি গান দিয়ে। তাছলিমা চৌধুরী সুরভীর রচনায় রনজিত ধর এর সুরে দলীয় গান ও জারি পরিবেশন করে মীরসরাই শিল্পকলা একাডেমীর শিল্পিবৃন্দ।

অনুষ্ঠানের সর্বশেষ পর্বে সাদা মনের মানুষ হিসেবে সম্মাননা প্রদান করা হয় সেলিনা হোসেন ও প্রফেসর ডাঃ জামশেদ আলমকে ও সাংবাদিকতায় মোহাম্মদ ইউসুফকে। স্থানীয় পর্যায়ে বিভিন্ন সুধীজনকে সম্মাননা ক্রেষ্ট বিতরণ করেন কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন। অনুষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষন ছিল গীতিকবি শাখাওয়াত উল্লাহ রিপন এর রচনায় শিল্পী আলাউদ্দিন তাহের এর সুরে গীতা আশ্চার্য্য ও বিপাশা ধর বীনার পরিবেশনায় বঙ্গবন্ধুকে প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের ও আঞ্চলিক সমূহ।

আরো খবর